হাই(High) কোয়ালিটির আর্টিকেল লেখার নিয়ম (High Quality Article) - ABC Media BD

Breaking

Saturday, November 9, 2019

হাই(High) কোয়ালিটির আর্টিকেল লেখার নিয়ম (High Quality Article)

হাই(High) কোয়ালিটির আর্টিকেল লেখার নিয়ম (High Quality Article)
হাই(High) কোয়ালিটির আর্টিকেল লেখার নিয়ম (High Quality Article)


হ্যালো বন্ধুরা কেমন আছেন সবাই। আশাকরি সবাই ভালো আছেন। অবশ্যই আপনারা আমার টাইটেল দেখে বুঝতে পারছেন আজ আমি আপনাদের সাথে কি বিষয় নিয়ে আলোচনা করবো। হা আজকে আমি আপনাদের সাথে আলোচনা করবো কি ভাবে ব্লগ বা ওয়ার্ডপ্রেস সাইটে হাই (High) কোয়ালিটির আর্টিকেল (High Quality Article)লিখতে হয়।

আমি অনেক দেখেছি যারা বাংলা ব্লগিং করেন তাদের আর্টিকেলের মধ্যে এমন কিছু সমস্যা রয়েছে যার কারণে তারা হাই (High) কোয়ালিটির আর্টিকেল লিখতে ব্যার্থ হচ্ছে। তাদের মূলত সমস্যা হচ্ছে তারা আর্টিকেল লেখার সময় সাধারণ কিছু নিয়ম মেনে চলতে পারে না।

তারা এই সব ভুল নিয়ে যদি সাইটে আর্টিকেল পাবলিশ করে তাহালে সেটা লো (Low) কোয়ালিটির আর্টিকেলের মধ্য পড়ে যায়। আর গুগল সার্চ লো (Low) কোয়ালিটির আর্টিকেল কখনো পছন্দ করে না। সে জন্য ঔ সব সাইট গুলো গুগল সার্চ থেকে ট্রাফিক বা ভিজিটর্স পায় না।

আপনার সাইটে যদি গুগল সার্চ থেকে ট্রাফিক বা ভিজিটর্স না পেয়ে থাকেন তাহালে বুঝবেন আপনার মধ্যে ও এমন সমস্যা রয়েছে। যাদের ব্লগ বা ওয়ার্ডপ্রেস সাইট রয়েছে তাদেরকে অবশ্যই হাই (High) কোয়ালিটির আর্টিকেল লেখার প্রতি গুরুত্ব দিতে হবে। তা না হলে তাদের সাইট কোনো দিনও Rank পাবে না।

একটি লো (Low) কোয়ালিটির আর্টিকেল পড়ে ভিজিটর্স কিছু শিখতে বা জানতে পারে না। আর গুগল সার্চ ইঞ্জিন থেকে ট্রাফিক বা ভিজিটর্স পাওয়া সম্ভবনা খুব কম থাকে। বলতে গেলে শতকরা ৭৫% কম থাকে।

ব্লগিং এ কীওয়ার্ড রিসার্চ (Keyword research) কেন জরুরি

তার জন্য আর্টিকেল লেখার সময় সাধারণ কিছু নিয়ম মেনে আর্টিকেল লিখলে আপনি নিজেও হাই (High) কোয়ালিটির বা ভালো মানের আর্টিকেল লিখতে পারবেন।

হাই (High) কোয়ালিটির আর্টিকেল লেখার নিয়ম নিচে দেওয়া হলো-


(১) আমরা যখন ব্লগে বা ওয়ার্ডপ্রেস এ আর্টিকেল লিখবো তখন অবশ্যই মনে রাখতে হবে আর্টিকেলটি যেন মিনিমাম ১০০০ (এক হাজার) ওয়ার্ডের হয়। ১০০০ (এক হাজার) ওয়ার্ডের বেশি হলে গুগলে খুব দ্রুত  ট্রাফিক বা ভিজিটর্স পাওয়া যায়। তাছাড়া গুগল সার্চ এমন বড় আর্টিকেল পছন্দ করে। আর আপনার সাইটকে Rank করতে সাহায্য করে।

(২) আর্টিকের লেখার সময় আপনি ছোট ছোট প্যারা আকারে লেখার চেষ্টা করুন। এতে ভিজিটর্সরা খুব সহজে পড়তে পারে এবং এটা দেখতে ভালো ও পরিস্কার লাগে। আর গুগল সব সময় ভালো এবং পরিস্কার আর্টিকেল পছন্দ করে। আমার আর্টিকেল গুলো দেখেন ছোট ছোট প্যারায় লিখছি।

(৩) আর্টিকেল লেখার মাঝে সব সময় H Tag  (h1, h2, h3) এ রকম ব্যবহার করুন। এতে ভিজিটর্সদের বুঝতে সুবিধা হয়। লেখার মধ্যে Header, Subheader ইত্যাদি ব্যবহার করবেন। তাছাড়া দেখতে ভালো লাগার জন্য আপনি লেখাকে বোল্ট (BOLD) এবং ইতালি (/) করে দিতে পারেন। এতে লেখার সুন্দরর্য বৃদ্ধি পায়। বোল্ট (BOLD) এবং ইতালি (I) করার জন্য গুগল EXTRA কোনো ভ্যালু দেয়না।

(৪) আর্টিকেল লেখার সময় তার ভিতরে মিনিমাম একটি ছবি (IMAGE) দিবেন। ছবি (IMAGE) অবশ্যই আপনি যে বিষয়ে আর্টিকেল লিখছেন সেই রকমের ছবি (IMAGE) দিবেন। ছবি (IMAGE) সব সময় রিয়েল দিবেন। অনেক সময় গুগল থেকে ডাউনলোড করে দিলে সেটা কপিরাইট হতে পারে। তার জন্য নিজের তৈরিকৃত ছবি (IMAGE)দিবেন। আর আপনারা যদি গুগল থেকে নিতে চান তাহালে গুগলে অনেক ছবির ফ্রি সাইট রয়েছে সেখান থেকে নিয়ে দিতে পারেন।

গুগলের সব চেয়ে জনপ্রিয় ফ্রি ছবির সাইট হচ্ছে
shutterstock.com এই সাইট থেকে আপনি প্রচুর পরিমানে সব ক্যাটাগরির ছবি পেয়ে যাবেন। তাছাড়া আরো অনেক ফ্রি সাইট রয়েছে। আপনি গুগলে free image site বলে সার্চ দিলে অনেক সাইট চলে আসবে।

ছবি আর্টিকেলে আবলোড করার আগে অবশ্যই ছবি rename এবং details এ আর্টিকেলের টাইটেল এবং আপনার সাইটের নাম rename এবং tag হিসাবে দিবেন। এতে দ্রুত আপনার সাইট Rank করবে এবং অল্প সময়ে ট্রাফিক বা ভিজিটর্স পাবেন।

ব্লগ বা ওয়ার্ডপ্রেস এ ছবি (IMAGE) আবলোড করার পরে ছবির নিচে অবশ্যই Captain এ আপনার আর্টিকেলের টাইটেল এবং সাইটের নাম rename করে দিবেন। তার পর property গিয়ে ঔ একই টাইটেল এবং সাইট নাম দিবেন।


(৫) যে বিষয়ে আর্টিকেল লিখবেন যে বিষয়ে আপনার অবশ্যই খুব ভালো জ্ঞান থাকতে হবে। আপনি যে বিষয়ে আর্টিকেল লিখছেন সেই বিষয়ে আগে অবশ্যই কেউ না কেউ তাদের ব্লগে আর্টিকেল লিখছে। তাহালে কেন আপনার আর্টিকেল গুগল ভিজিটর্সদের সামনে দেখাবে।

এমন প্রশ্ন আপনার মনে জাগতে শুরু করেছে তো? আমি উওর দিচ্ছি- আপনি যে বিষয়ে আর্টিকেল লিখছেন সে বিষয়ে বিরস্তিত (Details) এ লেখার চেষ্টা করবেন। এতে যদি আর্টিকেল ৫০০০ (পাঁচ হাজার) ওয়ার্ডের হয় তাহালে কোনো সমস্যা নেই। আপনি যখন বিরস্তিত ভাবে আর্টিকেল লিখবেন তখন গুগল সার্চ আপনার আর্টিকেল Rank করবে এবং ট্রাফিক বা ভিজিটর্সদের সামনে তুলে ধরবে। আশাকরি বুঝতে পারছেন।

SEO কি? SEO কাকে বলে? SEO কত প্রকার ও কি কি

তাছাড়া আপনাকে নিয়মিত ব্লগে আর্টিকেল পাবলিশ করতে হবে। এমন অনেক ব্লগাররা রয়েছে যারা নিয়মিত ব্লগে আর্টিকেল পাবলিশ করে না। মাসে ২ থেকে ৩ আর্টিকেল পাবলিশ করে। তারা কখনো গুগল সার্চ থেকে ট্রাফিক বা ভিজিটর্স পাবে না। আপনাকে কমকরে হলেও প্রতি সপ্তাহে ২ থেকে ৩ টা আর্টিকেল পাবলিশ করতে হবে। তাহালে আপনি দ্রুত Rank পাবেন।

(৬) আর্টিকেল লেখার সময় কখনো কপিরাইট লেখা পেষ্ট করবেন না। গুগল এডসেন্স কখনো কপিরাইট পছন্দ করে না। মনে করেন আপনি একটা বিষয় পড়ে সেটা নিজের মতো করে লিখলে সমস্যা নেই কিন্ত কখনো সরাসরিভাবে কপি পেষ্ট করবেন না। এতে আপনি কখনো Rank পাবেন না এবং আপনার সাইটটি ব্যান্ড করে দিতে পারে গুগল।

সর্বশেষঃ

একটা কথা মনে রাখবেন শুধু ব্লগ বা ওয়ার্ডপ্রেস সাইট খুললে হবে না। তাতে নিয়মিত হাই (High) কোয়ালিটির সুন্দর এবং পরিস্কার আর্টিকেল পাবলিশ করতে হবে। ব্লগে লেখা আর্টিকেলের কোয়ালিটি হলো একটি সুন্দর ব্লগের পরিচয়।

ব্লগিং ক্যারিয়ারে সফলতা পাবার জন্য হাই (High) কোয়ালিটির আর্টিকেল লেখা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। উপরের বিষয় গুলো মেনে আর্টিকেল লিখলে আপনি অবশ্যই ১০০% হাই (High) কোয়ালিটির লিখতে পারবেন।

আমরা আর্টিকেলটি সম্পর্ন পড়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। কোনো বিষয়ে বুঝতে অসুবিধা হলে নিচে কমেন্ট করে জানাবেন। আমি ইনশাল্লাহ উওর দিবো। ধন্যবাদ

2 comments: